তামিম, মুমিনুলের দৃঢ়তায় বাংলাদেশের দিন

অন্যরা যখন ওয়ানডে কিংবা টি-টোয়েন্টির জন্য প্রস্তুতি নেন, মুমিনুলের তখন দেখা মেলে নিঃসঙ্গ নেটে। সতীর্থদের থেকে আলাদা হয়ে ঘণ্টার পর ব্যাট নিয়ে পড়ে থাকেন। মিরপুরে যেমন হরহামেশা এই চিত্রের দেখা মিলেছে, ঠিক তেমনি নিউজিল্যান্ডেও। মুমিনুলকে টেস্ট খেলোয়াড় বানিয়ে রেখেছেন যে হাথুরুসিংহে, তাকে জবাবটা দিয়ে দিলেন টেস্টের প্রথমদিন।

বৃষ্টির বাধায় লম্বা বিরতির পর খেলা শুরু হওয়ার পরপরই অর্ধশতকে পৌঁছান মুমিনুল হক। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে আগের চার ইনিংসে দুটি শতক রয়েছে বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানের। তৃতীয় সেশনে মুখোমুখি হওয়া প্রথম বলে চার হাঁকিয়ে অর্ধশতকে যান মুমিনুল। ৭৯ বলে ৫২ রান করতে ৯টি চার ও একটি ছক্কা হাঁকান টপ অর্ডারের এই ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশ দিন শেষ করেছে ৩ উইকেটে ১৫৪ রান নিয়ে।

মুমিনুল শেষ পর্যন্ত অপরাজিত আছেন ৬৪ রানে। ম্যাচের পরিস্থিতি বুঝে ১১০টি বল খেলেছেন। দেখার মতে ফ্লিক, কাভার ড্রাইভে মুগ্ধ করেছেন। মারার বল পেলে একটাও ছাড়েননি। যাকে বলে নিখাদ ক্লাসিক ব্যাটসম্যান।

আগামীকাল ৩০ মিনিট আগে খেলা শুরু হবে। মুমিনুলের সঙ্গে থাকবেন সাকিব আল হাসান। যিনি ইতিমধ্যে জীবন পেয়েছেন। মাহমুদউল্লাহর বিদায়ের পর দ্রুত ফিরতে পারতেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। নিল ওয়াগনারের বলে পুল করতে গিয়ে স্কয়ার লেগে মিচেল স্যান্টনারকে সহজ ক্যাচ দিয়েও বেঁচে যান। সে সময় ৪ রানে ব্যাট করছিলেন।

শেষ দিকের এই চিত্র বাদ দিলে শুরুতে মন খারাপের চিত্র একটাই। শর্ট বলে ইমরুল কায়েসের ফিরে যাওয়া। মাঠে নামার আগে চারদিকে এই শর্ট বল নিয়েই আলোচনা হয়েছে। মুমিনুল তবু সতর্ক হননি।

ইনিংসের মাত্র চতুর্থ ওভারে ভাঙে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি। টিম সাউদির ফুল লেংথ বল ঠিক মতো খেলতে না পেরে বোল্ড হতে বসেছিলেন কায়েস। সেবার কোনোমতে বেঁচে গেলেও ফেরেন এক বল পরেই। শর্ট বলে পুল করে ট্রেন্ট বোল্টকে ক্যাচ দেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।

এরপর মুমিনুলকে নিয়ে ধীরে ধীরে এগুতে থাকেন তামিম। দুজনে ৪৪ রানের জুটি গড়েন। তামিম ব্যথা আঙুল নিয়ে খেলতে নেমে অর্ধশতক হাঁকান। গতকাল সকালে আঙুলের স্ক্যান করা হয়েছে। কোনো ফ্র্যাকচার নেই। তাই ডাক্তার মাঠে নামতে নিষেধ করেননি। তামিম ব্যাট করেন ১৫তম ওভার পর্যন্ত।

বোল্টের দ্বিতীয় ডেলিভারিতে বড় শটে গিয়েছিলেন। বল পায়ে লাগলে এলবির আবেদন ওঠে। আম্পায়ার সাড়া না দিলে রিভিউতে কপাল পোড়ে তামিমের। যাওয়ার আগে ৫০ বলে ৫৬ রান করে যান দেশসেরা ওপেনার। এরপর রিয়াদকে নিয়ে ৮৪ রানের আরেকটি জুটি গড়েন বাংলাদেশের ‘মিস্টার ওয়াল’। রিয়াদ ব্যক্তিগত ২৬ রানে ফিরলেও মুমিনুল দিনের দখল নিয়েই মাঠ ছাড়েন।






Related News

  • প্রত্যাবর্তনের মঞ্চেই যুবরাজ চরম অসম্মান করলেন তাঁর এই শুভানুধ্যয়ীকে, চমকে গিয়েছে গোটা দেশ
  • মেয়ের জন্য ৩৭ বছর বয়সী গেইলের ঘোষণা, ‘৫০ বছর বয়সেও আমি ক্রিকেট খেলবো’
  • ১৩ বছরের ফুটবলারের দাম শুনলে অবাক হতে হবে!
  • বৃষ্টি বাধায় দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে এগিয়ে রইলো বাংলাদেশ
  • এবার খোদ আইসিসি থেকে মিরাজের বার্তা এলো
  • সাকিবকে হিরো আখ্যা ও তার ব্যাটিং পছন্দ করেন নিউজিল্যান্ডের এই ক্রিকেট কিংবদন্তী
  • টাইগারদের ক্যাচ মিসের হিড়িক!
  • গতি ও বাউন্স দিয়ে ঘায়েল করে প্রতিশোধ নিলেন রুবেল!